ছন্দ কাকে বলে ?ছন্দর প্রকারভেদ PDF উদাহরণসহ আলোচনা পিডিএফ ডাউনলোড করুন।

ছন্দ কাকে বলে? ছন্দ কত প্রকার ও কি কি? উদাহরণসহ আলোচনা PDF ডাউনলোড করুন।

ছন্দ কাকে বলে WBCS, SSC,TET ,PSC ,WB POLICE , CGL, ETC পরীক্ষার জন্য খুবই মূল্যবান ১০০% কমন পাবেন আমাদের এই পিডিএফ ফাইল থেকে । ছন্দ কাকে বলে?কত প্রকার ও কি কি? উদাহরণসহ আলোচনা পিডিএফ ডাউনলোড করুন। প্রতিসপ্তাহে আমাদের ওয়েব সাইট ভিসিট করুন আর ডাউনলোড করুন কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পিডিএফ ফরম্যাটে। মন দিয়ে পড়াশুনা করুন।আমরা আপনাদের সাথে আছি।

ছন্দর প্রকারভেদ :

১. মাত্রা কাকে বলে?

আমরা যখন অক্ষর উচ্চারণে তখন যে সময় প্রয়োজন হয়, তাকে মাত্রা বলে। বাংলায় এই মাত্রাসংখ্যার নির্দিষ্ট নয়, একেক ছন্দে একেক অক্ষরের মাত্রাসংখ্যা একেক রকম হয়। মূলত, এই মাত্রার ভিন্নতাই বাংলা ছন্দগুলোর ভিত্তি। বিভিন্ন ছন্দে মাত্রাগণনার রীতি বিভিন্ন ছন্দের আলোচনায় দেয়া আছে।

২.শ্বাসাঘাত কাকে বলে?

আমরা যখন বাংলা কবিতা পাঠ করি তখন সময় পর্বের প্রথম অক্ষরের উপর একটা আলাদা জোর দিয়ে পড়তে হয়। এই রকম অতিরিক্ত জোর দিয়ে আবৃত্তি করাকেই বলা হয় শ্বাসাঘাত বা প্রস্বর।

৩.পর্ব কাকে বলে?

বাক্য বা পদের এক হ্রস্ব যতি হতে আরেক হ্রস্ব যতি পর্যন্ত অংশকে পর্ব বলা হয়।
পর্ব: কয়েকটা মাত্রা নিয়ে একটা পর্ব হয়।আর কয়েকটা পর্ব মিলে একটা চরণ হয়। চরণের শেষের পর্বটা
অপূর্ণ থাকতে পারে।

৪.পদ ও চরণ কাকে বলে?

দীর্ঘ যতি বা পূর্ণ যতি ছাড়াও এই দুই যতির মধ্যবর্তী বিরতির জন্য মধ্যযতি ব্যবহৃত হয় । দুই দীর্ঘ যতির
মধ্যবর্তী অংশকে চরণ বলে, আর মধ্য যতি দ্বারা চরণকে বিভক্ত করা হলে সেই অংশগুলোকে বলা হয় পদ।

৫.যতি বা ছন্দ-যতি কাকে বলে ?

কোন বাক্য পড়ার সময় শ্বাসগ্রহণের সুবিধার জন্য নির্দিষ্ট সময়ে অন্তর অন্তর যে উচ্চারণ বিরতি নেয়া হয়, তাকে ছন্দ-যতি বা শ্বাস-যতি বলে।

“সম্পূর্ণ ফাইল ডাউনলোডের জন্য পিডিএফ টি ডাউনলোড করুন “ছন্দ কাকে বলে

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *